শুক্রবার, ১৪ Jun ২০১৯, ০৬:২৬ অপরাহ্ন

‘সাত জনমের সৌভাগ্য, আমি আইয়ুব বাচ্চুর ভাই হতে পেরেছি’

‘সাত জনমের সৌভাগ্য, আমি আইয়ুব বাচ্চুর ভাই হতে পেরেছি’

কিংবদন্তি সঙ্গীতশিল্পীর আইয়ুব বাচ্চুর তৃতীয় নামাজের জানাজা শুক্রবার (১৯ অক্টোবর) বাদ আসর চ্যানেল আই প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়। এই ব্যান্ড সঙ্গীতশিল্পীর জানাজায় চ্যানেল আই পরিবারসহ অনেকে অংশ নেয়। সেখানে উপস্থিত ছিলেন, আইয়ুব বাচ্চুর ছোট ভাই ইরফান ছোট্টু। সেখানে আইয়ুব বাচ্চুর জানাজার আগে ছোট্টু কিছু কথা বলেন।

আবেগাপ্লুত কণ্ঠে তিনি বলেন, ‘সাত জনমের সৌভাগ্য যে, আমি আইয়ুব বাচ্চুর ভাই হতে পেরেছি। আমার ভাইয়ের জন্য মানুষ কতটা পাগল, তা খুব কাছ থেকে দেখেছি। তার জন্য মানুষ আমাকেও চেনে, সম্মান করে। ভাইয়ের জন্য আরেক ভাই সম্মান পায়, এটা অনেক বড় পাওয়া। একটাই অনুরোধ, আইয়ুব বাচ্চু হিসেবে তাকে যে ভালোবাসা দিয়েছেন, তা রেখে দেবেন। আর কিচ্ছু চাই না।’

তিনি বলেন, ‘প্রত্যেকের প্রতি ভাইজানের (আইয়ুব বাচ্চু) শ্রদ্ধাবোধ ছিল। প্রত্যেক মানুষের মনের সঙ্গে তিনি অ্যাডজাস্ট করে নিতে পারতেন। ভাইজান আসলে একজন আইয়ুব বাচ্চু হতে চেয়েছিলেন। এখানে আপনাদের প্রত্যেকের উপস্থিতি প্রমাণ করেছে যে তিনি সেই আইয়ুব বাচ্চু হতে পেরেছেন।’

ইরফান ছোট্টু আরও বলেন, ‘সব মানুষ ছিল ভাইজানের আপন। তিনি চলে যাওয়ার পর দেশ ও বিদেশের মানুষ তার জন্য কাঁদছেন, এতেই প্রমাণ হয় ভাইজান মানুষের কত আপন ও প্রিয় ছিলেন। আজ তিনি আমাদের মাঝে নেই। তিনি আপনাদের অনেকের সঙ্গে অনেক কাজ করেছেন। কাজ করতে গেলে অনেক সময় এমন কিছু ঘটে যেতে পারে যাতে আপনারা কোনো সময় হয়তো কষ্ট পেয়েছেন। আপনাদের কারো মনে তিনি না বুঝে কষ্ট দিয়ে থাকলেও দয়া করে তা ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। তার জন্য শুধু দুহাত তুলে দোয়া করবেন। তিনি যেন ভালো থাকেন।’ বলেন, আপনাদের সবার প্রতি আমার কৃতজ্ঞতা রইলো।

গুণী এই শিল্পীর দ্বিতীয় জানাজা শেষে তার মরদেহ ফের হিমঘরে রাখা হয়েছে। আর সেখান থেকে আজ শনিবার (২০ অক্টোবর) সকালে তার মরদেহ চট্টগ্রামে নিয়ে যাওয়া হবে। সেখানেই মায়ের পাশে শায়িত হবেন তিনি।

এর আগে, শুক্রবার বাদ জুমা জাতীয় ঈদগাহ মাঠে তার প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে মরদেহ মগবাজারের নিজের স্টুডিও এবি কিচেনে নিয়ে যাওয়া হয়। তার আগে শহীদ মিনারে সকল শ্রেণির মানুষ আইয়ুব বাচ্চুকে শেষ শ্রদ্ধা জানান।

বৃহস্পতিবার (১৮ অক্টোবর) সকাল ১০টার দিকে হৃদযন্ত্রে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন এই কিংবদন্তী সঙ্গীতশিল্পী। সকালে নিজ বাসায় অচেতন হয়ে পড়েন তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫৬ বছর। আইয়ুব বাচ্চুর এই মৃত্যুতে সারা দেশে শোকের ছায়া নেমে আসে।

আইয়ুব বাচ্চু ১৯৬২ সালের ১৬ আগস্ট তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের (বর্তমান বাংলাদেশ) চট্টগ্রাম জেলায় জন্মগ্রহণ করেন।

সময়ের ধারা নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com