বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:৪৬ পূর্বাহ্ন

জনপ্রিয় হয়ে যাচ্ছে গুলিয়াখালি সমুদ্রে সৈকত

জনপ্রিয় হয়ে যাচ্ছে গুলিয়াখালি সমুদ্রে সৈকত

মোঃ আরিফুর রহমান :
গুলিয়াখালি সমুদ্র সৈকতে অফুরন্ত সবুজের মায়া, প্রকৃতির অপরূপ রূপের পসরা, হৃদয় উজাড় করে দেয়া প্রকৃতির নৈসর্গিক দৃশ্য দেখা যায়। বাংলাদেশের জনপ্রিয় দুটো বা তিনটি সমুদ্র সৈকতের মতো গুলিয়াখালি অত জনপ্রিয় না, তবে গুলিয়াখালী সমুদ্র সৈকত যেন প্রকৃতির এক অনিন্দ্য রূপ। চারদিকে সবুজ আর সবুজ, মাথার উপর বিশাল আকাশ আর মাটিতে একপাশে কেওড়ার বন, অন্যপাশে সমুদ্রের বিশাল জলরাশি। বনের মাঝ দিয়ে বয়ে গেছে একটি ছোট খাল।
চট্রগ্রাম জেলার সীতাকুণ্ড উপজেলায় গুলিয়াখালি সমুদ্র সৈকত অবস্থিত। স্থানীয়রা গুলিয়াখালি সমুদ্র সৈকতকে মুরাদপুর বীচ নামে চেনে। সীতাকুণ্ড বাজার থেকে গুলিয়াখালি যেতে ৩৫ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে হয়। দিগন্ত বিস্তৃত জলরাশির উন্মাদনা ও প্রকৃতির অপরুপ রুপের উদ্দামতা দেখতে চাইলে একদিন চলে যেতে পারেন গুলিয়াখালি সমুদ্র সৈকতে।
সীতাকুণ্ডের গুলিয়াখালি সমুদ্র সৈকতে দেখতে পাবেন সমুদ্রের বিশাল জলরাশি, আছড়ে পড়া ঢেউ, মায়াবী হরিণীর মতো প্রকৃতির উদ্দামতা ও রূপলাবণ্য। দেখতে পাবেন কেওড়ার বনে সবুজের হাতছানি। একদিকে যৌবনা সাগর, অন্যদিকে সারি সারি কেওড়া গাছের সৌন্দর্য আপনাকে মুগ্ধ করবে।
মনে হবে রুপসী গুলিয়াখালির রুপের শেষ নেই। সবুজ ঘাসেরা এখানে চাদরের মতো ছড়িয়ে আছে চারপাশ জুড়ে। সবুজ আর সবুজের সমারোহে ঢাকা এখানকার পরিবেশ।
যে ভাবে যাবেন ফেনী থেকে লোকাল বাসে ৫০-৭০ টাকা ভাড়া দিয়ে সীতাকুণ্ড যেতে পারবেন।
সীতাকুণ্ড থেকে সিএনজি, অটোরিকশা নিয়ে যেতে পারবেন গুলিয়াখালি সমুদ্র সৈকতে। ভাড়া আগে থেকে ঠিক করে নেবেন। গুলিয়াখালি থেকে ফেরার পথে যানবাহন পাওয়া যায় না। তাই যাওয়া-আসার জন্য সিএনজি রিজার্ভ করে রাখা ভালো।

সময়ের ধারা নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com