শুক্রবার, ২২ মে ২০২০, ০৮:১৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
ফরিদপুরে স্বেচ্ছাসেবকলীগের পক্ষ থেকে নানান শ্রেনী পেশার মানুষের মধ্যে ইফতার বিতরন লক্ষীপুরে বাড়ছে করোনায় আক্রান্ত রোগী,একদিনে ২২ জন-সময়ের ধারা লক্ষীপুরে চররুহিতা সানরাইজ সমাজকল্যাণ ফাউন্ডেশন এর উদ্দেগে ১টি সেলাই মেশিনসহ কিছু পরিবারকে ঈদ উপহার লক্ষীপুর চররুহিতা সানরাইজ সমাজকল্যাণ ফাউন্ডেশন এর উদ্যোগে ১ টি সেলাই মেশিন ও কিছু পরিবারকে ঈদ উপহার -সময়ের ধারা ১০০০ হাজার কর্মহীনের মাঝে ক্যান্টনমেন্ট থানা আওয়ামীলীগ এর ঈদ উপহার সাতক্ষীরায় তাণ্ডব চালিয়ে রাজশাহী গিয়ে ক্ষমতা হারায় ‘আম্পান’ কালিজিরার উপকারিতা আজ সারাদিন বৃষ্টি থাকবে সাবেক দুই জামাতাকে দিয়ে মেয়েকে ‘গণধর্ষণ’ করালেন মা! ‘আম্পান’ তাণ্ডবে শিশুসহ ৯ মৃত্যু
পুলিশ সুপার ছেলে, স্যালুট করতে গর্ববোধ কনস্টেবল বাবার!

পুলিশ সুপার ছেলে, স্যালুট করতে গর্ববোধ কনস্টেবল বাবার!

যে কোনও মানুষের জন্যই সবচেয়ে গর্বের বিষয় তাঁর সন্তারদের সাফল্য। ব্যতিক্রম নন, ভারতের উত্তরপ্রদেশের পুলিশ কনস্টেবল জনার্দন সিংও। সদ্য তাঁর ছেলে যোগ দিয়েছেন লখনউ (উত্তর)-এর সুপারিন্টেন্ডেন্ট অব পুলিশ হিসেবে। কাকতালীয়ভাবে ওই এলাকারই একটি থানায় কনস্টেবল পদে নিযুক্ত আছেন জনার্দন। এখন তাঁকে কাজ করতে হবে নিজের ছেলেরই অধীনে।

আজন্ম কাজ করে এসেছেন নিচুতলার পুলিশকর্মী হিসেবে। কত টাকাই বা মাইনে, ছেলেকে বড় করতে বেশ কষ্টই হয়েছে। রীতিমতো কাঠখড় পুড়িয়ে বড় করেছেন ছেলে অনুপ সিংকে। নিজের অনেক শখ, ইচ্ছে ত্যাগ করতে হয়েছে ছেলের সাফল্যের স্বার্থে।

সেই ত্যাগকে মর্যাদা দিয়েছেন ছেলে অনুপ। কষ্টের মধ্যে দিন কাটানো অনুপ এখন লখনউয়ের পুলিশ সুপার। সত্যিই তো একজন বাবার জন্য এর থেকে গর্বের আর কী হতে পারে? স্বাভাবিকভাবেই গর্বিত বাবা। নিজের সন্তুষ্টি গোপন করেননি তিনি।

জানিয়েছেন, আমি আমার ছেলের অধীনে কাজ করতে পেরে গর্বিত। আমার জন্য এটা সম্মানের। ছেলের অধীনে কাজ করতে পারলে ভালই লাগবে। অনুপ এখন উত্তর লখনউয়ের পুলিশ সুপার।

অন্যদিকে, জনার্দন সিং অনুপের এলাকারই একটি থানার কনস্টেবল। তাই প্রোটোকল অনুযায়ী ছেলেক স্যালুট করাটা দস্তুর। তাতে অবশ্যে বিন্দুমাত্র আপত্তি নেয় জনার্দন সিংয়ের। তিনি বলছেন, ‘যখনই ডিউটিতে থাকব ছেলেকে স্যালুট করব। এতে লজ্জার কিছু নেই।’

বাবা তো খুশি। কিন্তু ছেলে কী বলছেন। লখনউ উত্তর এলাকার সদ্যনিযুক্ত পুলিশ সুপার বলছেন, বাবার কাছ থেকে অনেক কিছু শিখেছি। এখন একসঙ্গে কাজ করার সুযোগ পাচ্ছি। আমাদের ব্যক্তিগত সম্পর্কের জন্য পেশাগত সম্পর্কে কোনও প্রভাব পড়বে না।

সময়ের ধারা নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com