মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০২:৪৯ অপরাহ্ন

এই সংসার যাওয়া আসার রঙ্গমঞ্চ: তোফায়েল

এই সংসার যাওয়া আসার রঙ্গমঞ্চ: তোফায়েল

সদ্য বিদায়ী বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, রাজনীতির এই জগত একটা সংসারের মতো। আর এই সংসার যাওয়া আসার রঙ্গমঞ্চ।

সোমবার সচিবালয়ে নিজের সাবেক বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ছেড়ে যাওয়ার আগে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

বাণিজ্য মন্ত্রী বলেন, নতুনদের জায়গা করে দিতে পুরাতনদের জায়গা ছেড়ে দিতে হয়। এজন্য প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রিসভায় নতুনদের সুযোগ দিয়েছেন। আমি আশা করবো নতুনরা যার যার দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করবেন।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, নতুনরা সবাই যোগ্য। যোগ্যতা বিবেচনা করে প্রধানমন্ত্রী তাদের মন্ত্রিসভায় ঠাঁই দিয়েছেন।

তিনি বলেন, এ সরকারের আগামী ৫ বছর হবে বাংলাদেশের জন্য যুগান্তকারী ইতিহাস। কারণ এ পাঁচ বছরে দেশে অভাবনীয় উন্নয়ন হবে।

সাবেক এই বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, আমি টানা ৯ বছর এ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে ছিলাম। এসময় সরকারের বিভিন্ন গুরুদায়িত্ব অত্যন্ত নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করার চেষ্টা করেছি।

প্রধানমন্ত্রী চমৎকার একটি মন্ত্রিসভা গঠন করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন সদ্য বিদায়ী বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

তিনি বলেছেন, আমরা তো ছিলামই। নতুনদেরও জায়গা করে দিতে হবে। যারা মন্ত্রিত্ব লাভ করতে যাচ্ছেন সবাই চমৎকার মানুষ, সৎ। এটা তাদের প্রাপ্য।

সোমবার (৭ জানুয়ারি) সচিবালয়ে নিজের বিদায় অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

তোফায়েল বলেন, সংসদ সদস্য হিসেবেও ভালো ভূমিকা রাখা যায়। আমার কাছে এমপিই বড়। সংসদে থেকে দেশের উন্নয়নে কাজ করে যেতে চাই।

নিজের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের বর্ণনা দিয়ে তোফায়েল বলেন, ‘২৮ বছর বয়সে প্রথম প্রতিমন্ত্রীর মর্যাদায় রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধুর পলিটিক্যাল সেক্রেটারি নিযুক্ত হয়েছিলাম। পরবর্তীতে ‘৭২ থেকে ‘৭৫ সাল পর্যন্ত রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের বিশেষ সহকারি ছিলাম। এর ২১ বছর পর ‘৯৬ সালের ২৩ জুলাই শপথ নিয়ে ২৪ জুলাই সচিবালয়ে এসেছি। দীর্ঘ ৯ বছর আমি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে ছিলাম। আমি পাঁচবার ওয়ার্ল্ড ট্রেড অর্গানাইজেশন কনফারেন্সে কো-অর্ডিনেটর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি।’

সৈয়দ আশরাফের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমাদের এই শুভক্ষণে সৈয়দ আশরাফ নেই, এটা আমাদের দুর্ভাগ্য। সৈয়দ আশরাফের জায়গা অন্য কাউকে দিয়ে পূরণ করা সম্ভব নয়।’

আগামী ৫ বছর বাংলাদেশে অর্থনৈতিক বিজয় অর্জিত হবে আশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, ২০২০ সালে বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মদিন এবং ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী আমরা জমজমাটভাবে উদযাপন করবো। ২০৩০ সালে বাংলাদেশ হবে বিশ্বের ২৬তম অর্থনৈতিক দেশ।

সময়ের ধারা নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com