শনিবার, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:৪২ পূর্বাহ্ন

‘ব্রেকআপ’ না মানায় প্রেমিককে মেরেই ফেলল প্রেমিকা ও তার বন্ধুরা!

‘ব্রেকআপ’ না মানায় প্রেমিককে মেরেই ফেলল প্রেমিকা ও তার বন্ধুরা!

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে প্রেম সংক্রান্ত বিরোধে আরিফ হোসেন নামের এক কলেজ ছাত্রকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। ‘ব্রেকআপ’ না মানায় প্রেমিক আরিফকে বাসায় ডেকে ব্যাপক মারধর করেন প্রেমিকা ও তার বন্ধুরা।

পরে আরিফকে গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সোমবার (১১ ফেব্রুয়ারি) রাতে ঢাকার এক প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরিফ মারা যান। মঙ্গলবার (১২ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে তার মরদেহের ময়না তদন্ত শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

নিহত আরিফুর রহমান আরিফ উপজেলার মুন্সীরহাট ইউনিয়নের বসন্তপুর গ্রামের আব্দুল কাদির খোকনের বড় ছেলে এবং স্থানীয় মুন্সীরহাট প্রকৌশলী ওয়াহিদুর রহমান ডিগ্রি কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র ছিলেন।

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, নিহত আরিফের সঙ্গে দীর্ঘ তিনবছর ধরে পাশ্ববর্তী বারাইশ পশ্চিম পাড়ার সফিকুর রহমানের মেয়ে লিমার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিলো। বৃহস্পতিবার (৭ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় আরিফ মুন্সীরহাট বাজারের ছাত্রাবাস থেকে কোচিং শেষে মোটরসাইকেল নিয়ে বাড়ি ফিরছিল। এ সময় প্রেমিকা লিমা ফোন করে তাকে তার বাড়িতে ডেকে নেয়। পরে লিমার বাড়িতে অবস্থান নেওয়া দুর্বৃত্তরা তার উপর আক্রমণ করে এবং মাথায় গুরুতর আঘাত করে। ওই দিন রাতে পরিবারের সদস্য ও স্থানীয়রা তাৎক্ষণিক তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানের চিকিৎসকরা উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমিল্লায় পাঠালে পরিবারের সদস্যরা তাকে কুমিল্লা টাওয়ার হাসপাতালে নিয়ে যায়।

পরে সেখানে রোগীর অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় ডাক্তারের পরামর্শে তাকে দ্রুত ঢাকায় নিয়ে যায় পরিবার। পরে ধানমন্ডি নর্দান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) টানা তিন দিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার রাতে আরিফের মৃত্যু হয়। মঙ্গলবার বাদ আছর জানাজার নামাজ শেষে আরিফের মরদেহ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

নিহতের চাচা রবিউল বলেন, আরিফ-লিমার প্রেমের সম্পর্ক জানতে পেরে গত ৫-৬ মাস আগে লিমার বাবার কাছে বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে যায় আরিফের মা। কিন্তু লিমার বাবা আরিফের পরিবারের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় পরিবারের চাপে লিমাও আরিফের সঙ্গে সম্পর্কের ইতি টানে। কিন্তু সম্পর্কের ইতি মানেনি আরিফ। কিছুদিন আগে অন্য জায়গা থেকে লিমার বিয়ের প্রস্তাব আসলে অজ্ঞাত কারণে বিয়ে ভেঙে যায়। বিয়ে না হওয়ার জন্য আরিফকে দায়ী করে লিমার পরিবার বিভিন্ন সময় হুমকি দিয়ে আসছিল।

তবে স্থানীয় সূত্র জানায়, কিছুদিন আগে লিমা আক্তার মেহেদি নামের এক ছেলের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। এ কারণে পরিবারের পছন্দের কাউকে বিয়েতে রাজি হচ্ছিল না লিমা। খবর পেয়ে আরিফ নতুন প্রেমিক মেহেদিকে লিমার সঙ্গে সম্পর্ক না রাখার নির্দেশ দেয়। এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে লিমা আক্তার ও মেহেদি পরিকল্পিতভাবে বৃহস্পতিবার রাতে আরিফকে মোবাইলে ডেকে নিয়ে পিটিয়ে আহত করে।

চৌদ্দগ্রাম থানার এসআই নুরুজ্জামান হাওলাদার জানান, ‘নিহতের ঘটনায় পুলিশ লাশ উদ্ধার ও ময়নাতদন্ত শেষে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়ের প্রস্তুতি চলছে।’

তিনি বলেন, এ ঘটনায় জড়িত প্রেমিকা ও তার প্রেমিক এবং পরিবার পালিয়ে গেছে। আরিফের পরিবারের মামলার প্রেক্ষিতে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সময়ের ধারা নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com