বৃহস্পতিবার, ১৫ অগাস্ট ২০১৯, ০২:৪৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
ময়মনসিংহের ভালুকায় ডাকাতিয়া ইউনিয়ন অর্নাস এসোসিয়েশন আয়োজিত ঈদ পুনর্মিলনী ও সংবর্ধনা ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন ভেলাগুড়ী ইউপি চেয়ারম্যান মহির উদ্দিন সরকারের পাশাপাশি যুব সমাজকে ডেঙ্গু প্রতিরোধে এগিয়ে আসতে হবে- কাজিম উদ্দিন আহম্মেদ ধনু এমপি ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন এ্যাডভোকেট আঞ্জুমানআরা শাপলা ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ওসি মোস্তাফিজার রহমান ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবু সাঈদ ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন চন্দ্রপুর ইউনিয়নের কাজী শরিফুল ইউএনও রবিউল হাসানের ঈদ শুভেচ্ছা ময়মনসিংহের ভালুকায় বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুেন্নছা মজিব এর ৮৯ তম জন্মবাষিকী উপলক্ষে উঠান বৈঠক ঢাকায় যুবরাজ, দাম ৩০ লাখ!
পঞ্চগড়ে মেয়েকে আছড়ে হত্যা, স্ত্রীসহ আরও ২ সন্তানকে কুপিয়ে জখম

পঞ্চগড়ে মেয়েকে আছড়ে হত্যা, স্ত্রীসহ আরও ২ সন্তানকে কুপিয়ে জখম

পঞ্চগড় প্রতিনিধি :

পঞ্চগড় জেলার সদর উপজেলায় পারিবারিক কলহের জের ধরে রত্না নামে ছয় মাসের সন্তানকে আছড়ে হত্যা করেছেন বাবা নাজিমুল ইসলাম (৪০)। এ সময় তিনি স্ত্রীসহ আরও দুই সন্তানকে কুপিয়ে জখম করেছেন। এর পর থেকেই নাজিমুল পলাতক রয়েছেন।

সোমবার সকালে উপজেলার চাকলাহাট ইউনিয়নের পূর্ব জয়ধরভাঙ্গা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আহত স্ত্রী রশিদা বেগম (৩০), মেয়ে নাজিরা বেগম (১০) ও রিয়া মনিকে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরে অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে তাদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে সদর থানার ওসি আবু আক্কাস আহমেদ জানান, ১১ বছর আগে নাজিমুল ইসলাম প্রেম করে বিয়ে করেন রশিদা বেগমকে। এর পর থেকেই তাদের মধ্যে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কলহ লেগেই থাকত। এ নিয়ে চার বছর আগে এক মামলায় নাজিমুলকে আটকও করা হয়।

রোববার সকালে তাদের মধ্যে ফের ঝগড়া হয়। এ সময় নাজিমুল তার স্ত্রী রশিদা বেগম, মেয়ে নাজিরা বেগম ও রিয়া মনিকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। এ সময় ছোট মেয়ে রত্নাকেও আছাড় মারা হয়। এতে ঘটনাস্থলে তার মৃত্যু হয়।

পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় চিকিৎসকরা তাদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করে।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত স্বামী নাজিমুলকে আটকের চেষ্টা চলছে। নিহত শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানান ওসি।

পঞ্চগড় জেলার সদর উপজেলায় পারিবারি কলহের জের ধরে রত্না নামে ছয় মাসের সন্তানকে আছড়ে হত্যা করেছেন বাবা নাজিমুল ইসলাম (৪০)। এসময় তিনি স্ত্রীসহ আরও দুই সন্তানকে কুপিয়ে জখম করেছেন। এরপর থেকেই নাজিমুল পলাতক রয়েছেন।

সোমবার সকালে উপজেলার চাকলাহাট ইউনিয়নের পূর্বজয়ধরভাঙ্গা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আহত স্ত্রী রশিদা বেগম (৩০), মেয়ে নাজিরা বেগম (১০) ও রিয়া মনিকে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে তাদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে সদর থানার ওসি আবু আক্কাস আহমেদ জানান, ১১ বছর আগে নাজিমুল ইসলামকে প্রেম করে বিয়ে করেন রশিদা বেগমকে। এরপর থেকেই তাদের মধ্যে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কলহ লেগেই থাকতো। এ নিয়ে চার বছর আগে এক মামলায় নাজিমুলকে আটকও করা হয়।

রোববার সকালে তাদের মধ্যে ফের ঝগড়া হয়। এসময় নাজিমুল তার স্ত্রী রশিদা বেগম , মেয়ে নাজিরা বেগম ও রিয়া মনিকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। এসময় ছোট মেয়ে রত্নাকেও আছাড় মারা হয়। এতে ঘটনাস্থলে তার মৃত্যু হয়।

পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় চিকিৎসকরা তাদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করে।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত স্বামী নাজিমুলকে আটকের চেষ্টা চলছে। নিহত শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানান ওসি।

সময়ের ধারা নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com