বৃহস্পতিবার, ৩০ Jul ২০২০, ১১:০১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
লক্ষ্মীপুর বাসীকে অগ্রিম ঈদ শুভেচ্ছা জানিয়েছেন হুমায়ুন কবির পাটোয়ারী-সময়ের ধারা হক্কানি উলামায়ে কেরামের নামে মিথ্যা মামলা দ্রুত প্রত্যাহার করতে হবে – বাবুনগরী বঙ্গবন্ধু কে কটূক্তি : চবি শিক্ষকের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা ! সেপ্টেম্বরে স্কুল খুললে ডিসেম্বরেই সমাপনী জঙ্গি হামলার আশঙ্কা, পুলিশের সব ইউনিটকে সতর্ক করে চিঠি করোনায় দেশে নতুন মৃত্যু ৩৭ জনের ঈদের আসছে সরকার মিডিয়া ভিশনের প্রযোজনায় নাম বললে চাকরী থাকবেনা লক্ষ্মীপুরে উম্যান এন্ড চাইল্ড এ্যাডভান্সমেন্ট সোসাইটি(ওয়াকাস)এর উদ্যোগে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা ও ঔষধ বিতরন সেরা হোটেল রিসোর্ট নির্বাচিত ওয়েস্টিন ঢাকা, প্যালেস লাক্সারি রিসোর্ট ও জালালপুর ইকো রিসোর্ট লকডাউনের ফলে চবি ক্যাম্পাসে কমেছে করোনা সংক্রমণ !
আদালতে বিশৃঙ্খলাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: আইনমন্ত্রী

আদালতে বিশৃঙ্খলাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: আইনমন্ত্রী

জিয়া চ্যারিটেবল মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের শুনানিতে বিশৃঙ্খলা ও হট্টগোলকারীদের বিরুদ্ধে সরকার ব্যবস্থা নেবে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

বৃহস্পতিবার বিকেলে গুলশানের নিজ বাসায় সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় উচ্চ আদালতে বিএনপিপন্থি আইনজীবীদের বিশৃঙ্খলা ও হট্টগোলের ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানান তিনি।

আইনমন্ত্রী বলেন, বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা আদালতে বিশৃঙ্খলা করে। যা কোনোমতেই কাম্য নয়। বিএনপির কাছে দেশের কোনো প্রতিষ্ঠানই নিরাপদ নয়। আইনের শাসনের প্রতি তাদের শ্রদ্ধাবোধ নেই। বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি বলেন, অতীতেও আমরা দেখেছি যে, বিএনপিপন্থী আইনজীবী এবং বিএনপিসমর্থক বহিরাগতরা তাদের বিরুদ্ধে আদালত কোনো আদেশ বা রায় দিলে তারা উচ্ছৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টি করার চেষ্টা করে।

‘বিএনপির এই কর্মকাণ্ডে পরিষ্কারভাবে প্রতীয়মান হয় যে, বিএনপির আইনের শাসনের প্রতি কোনো শ্রদ্ধাবোধ নেই। বাংলাদেশের সর্বোচ্চ সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানগুলির উপর তাদের কোনো আনুগত্য নেই এবং বাংলাদেশের কোনো প্রতিষ্ঠান তাদের কাছে নিরাপদ নয়।’

এর আগে পূর্ব নির্ধারিত তারিখ অনুযায়ী বৃহস্পতিবার জামিন শুনানি হওয়ার কথা থাকলেও মেডিকেল বোর্ডের রিপোর্ট না আসায় রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের প্রেক্ষিতে আগামী ১২ই ডিসেম্বর শুনানির পরবর্তী দিন ধার্য করেন প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন ৬ সদস্যের আপিল বেঞ্চ। এ সময় আদালতে উভয়পক্ষের আইনজীবীদের মধ্যে বাকবিতন্ডা ও হট্টগোল বেধে যায়। পরে এজলাস কক্ষ ত্যাগ করে আপিল বেঞ্চ। এরপর থেকে ওই কক্ষেই অবস্থান করেন খালেদার পক্ষের আইনজীবীরা।

এ সময় বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা বারবার খালেদা জিয়ার জামিনের কথা বলতে থাকেন। কিন্তু প্রধান বিচারপতি তাদের কথায় কান দেননি। দু’পক্ষের আইনজীবিদের মধ্যে হট্টগোল শুরু হয়। এরই একপর্যায়ে সকাল ১০টার দিকে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে অন্যান্য বিচারপতিরা এজলাস থেকে বের হয়ে যান। তবে খালেদার জামিন না হওয়ায় বিএনপিপন্থি বিচারপতিরা এখনো এজলাসে অবস্থান করছেন।

এর মাঝে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বিএনপিপন্থি আইনজীবীদের উদ্দেশে বলেছেন, বাড়াবাড়ির একটা সীমা আছে। আমরা আপিল বিভাগে এমন অবস্থা আগে কখনও দেখিনি। আপনারা এজলাস কক্ষে যে আচরণ করেছেন তা নজিরবিহীন।

এরপর তীয়বারের মতো প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন ছয় বিচারপতির আপেল বেঞ্চে ১১ টা ৪৫ মিনিটে এজলাসে প্রবেশ করেন। পরে আওয়ামীপন্থি আইনজীবীরাও এজলাসে প্রবেশ করলে আবারও তুমুল হট্টগোল শুরু হয়।

প্রধান বিচারপতির এজলাসে থাকা অবস্থাতেই বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা স্লোগান দিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে। স্লোগানে তারা বলেন, উই ওয়ান্ট জাস্টিস, শেম শেম বলে, খালেদা জিয়া, খালেদা জিয়া।

পরে বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা স্লোগান দিতে দিতে দুপুর ১টা ১৫ মিনিটে এজলাস কক্ষ ত্যাগ করেন। এরপর ১টা ২০ মিনিটে এজলাস ত্যাগ করেন প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে আপিল বেঞ্চ।

প্রসঙ্গত, গত ২৮ নভেম্বর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার স্বাস্থ‌্য বিষয়ক মেডিক‌্যাল বোর্ডের রিপোর্ট ৫ ডিসেম্বরের মধ‌্যে দাখিলের নির্দেশ দেন আপিল বিভাগ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক‌্যাল বিশ্ববিদ‌্যালয়ের চিকিৎসকদের নিয়ে গঠিত মেডিক‌্যাল বোর্ডকে এ প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়।

সময়ের ধারা নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com