শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০, ০২:৪২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
একজন আর্দশ শিক্ষকের গল্প লক্ষীপুর রামগতিতে খালের পানিতে ভেসে উঠল কৃষকের লাশ-সময়ের ধারা লক্ষ্মীপুর” লোকে লোকারন্য মতির হাট মেঘনা নদীর পাড়-সময়ের ধারা হাটহাজারীর উদালিয়াতে সন্ত্রাসীর রাজত্ব কায়েম করতে যুবককে রক্তাক্ত জখম লক্ষীপুর বাসীকে মার্কেন্টাইল ইসলামী লাইফ ইন্স্যুঃ পক্ষ থেকে ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা লক্ষীপুর বাসীকে জেলা মানবাধিকার সংস্থার পক্ষ থেকে ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা-সময়ের ধারা লক্ষীপুর বাসীকে কাজী নাঈমের পক্ষ থেকে ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা-সময়ের ধারা লক্ষ্মীপুরে’পত্রিকা হকারদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ করেন জেলা মানবাধিকার সংস্থা-সময়ের ধারা ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মুজাহিদুল ইসলাম-সময়ের ধারা লক্ষ্মীপুরে এ বি এম গোফরান হোসেন বাবুর ঈদ উপহার-সময়ের ধারা
করোনায় মৃত্যুহারে ইতালির পরেই বাংলাদেশ

করোনায় মৃত্যুহারে ইতালির পরেই বাংলাদেশ

Photo : clinicaltrialsarena.com

বিশ্বব্যাপী মহামারি আকার নেওয়া করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে ২০৫টি দেশ ও অঞ্চলে। একই সঙ্গে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ডায়মন্ড প্রিন্সেস ও এমএস জ্যান্দাম নামে দুটি প্রমোদতরীর যাত্রীরা। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছে ১১ লাখ ১৭ হাজার ৮৬০ জন আর মৃত্যুবরণ করেছে ৫৯ হাজার ২০৩ জন। এই হিসাবে বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসে মৃত্যুর হার ৫.২৯ শতাংশ। সফটওয়্যার সল্যুশন কোম্পানি ডারাক্সের পরিসংখ্যানভিত্তিক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটার এই তথ্য প্রকাশ করেছে।

করোনাভাইরাস আক্রান্ত ২০৫ দেশের মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশও। আক্রান্তের দিক থেকে ওয়ার্ল্ডোমিটারে বাংলাদেশের অবস্থান নিচের দিকে থাকলেও মৃত্যুর হার বিবেচনায় বাংলাদেশের অবস্থান দ্বিতীয়। মৃত্যু হারে প্রথম অবস্থানে রয়েছে ইতালি। আর তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে স্পেন।

আজ করোনা নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন প্রেস ব্রিফিং থেকে জানা গেছে, বাংলাদেশে করোনায় এ পর্যন্ত মৃত্যুবরণ করেছে ৮ জন। আক্রান্ত হয়েছে ৭০ জন। এর মানে দেশে প্রতি ১০০ জন করোনা আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে প্রায় সাড়ে ১১ জন মারা যাচ্ছেন!

এই হিসেবে বাংলাদেশে মৃত্যুর হার ১১.৪৩ শতাংশ যেখানে ভাইরাসটির উৎপত্তিস্থল চীনে মৃত্যুর হার ৪.০৪%। মৃত্যুর হারে বাংলাদেশ থেকে এগিয়ে থাকা একমাত্র দেশ ইতালিতে। দেশটিতে এই হার ১২.২৫ শতাংশ। ইতালির পর মৃত্যুপুরি হিসেবে বিবেচিত স্পেনেও এই হার বাংলাদেশের চেয়ে কম। স্পেনে মৃত্যুর হার ৯.৩৯ শতাংশ। আক্রান্তের দিক থেকে প্রথম অবস্থানে থাকা যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যুহার মাত্র ২.৬৭ শতাংশ।

এশিয়ার দুই দেশ দক্ষিণ কোরিয়া এবং মালয়েশিয়াতেও মৃত্যুহার যৎসামান্য, যথাক্রমে ১.৭৪ % ও ১.৫৯%। প্রতিবেশী ভারতে (২.৭৯%) তাদের থেকে কিছুটা বেশি হলেও পাকিস্তানে (১.৪৮%) তুলনামূলকভাবে অনেক কম। অন্যদিকে দক্ষিণ এশিয়ার আরেক দেশ শ্রীলঙ্কায় মৃত্যুহার ৩.১৪%।

মহামারি করোনাভাইরাসের এখনও কোনো প্রতিষেধক আবিষ্কৃত না হওয়ায় বিশেষজ্ঞদের দেওয়া পরামর্শই এই প্রাণঘাতী ভাইরাস থেকে রক্ষা পাওয়ার একমাত্র উপায়। এক্ষেত্রে নাগরিকদের সচেতনতা একান্ত জরুরি। একইসঙ্গে সামাজিক দূরত্ব, লকডাউন ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দেওয়া নির্দেশাবলী মেনে চলা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়াও কোয়ারেন্টিন ও আইসোলেশনের ওপর সরকারের উচিত আরও গুরুত্বারোপ করা।

সময়ের ধারা নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com