রবিবার, ৩১ মে ২০২০, ০১:৫৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
লক্ষ্মীপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত ব্যক্তির লাশ দাফন করলো সবুজ বাংলাদেশ ইনাফা-সময়ের ধারা কটিয়াদীতে ইসাহাক ভূঁইয়া ফাউন্ডেশন ও জালালপুর ইকো রিসোর্টের উপহার সামগ্রী প্রদান ফরিদপুরে জেলার ভাংগায় সাংবাদিকদের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয় ঈদ পূন:মিলনী অনুষ্ঠান বাংলাদেশ নতুন ২৫২৩ জনের করোনা শনাক্ত-সময়ের ধারা একজন আর্দশ শিক্ষকের গল্প লক্ষীপুর রামগতিতে খালের পানিতে ভেসে উঠল কৃষকের লাশ-সময়ের ধারা লক্ষ্মীপুর” লোকে লোকারন্য মতির হাট মেঘনা নদীর পাড়-সময়ের ধারা হাটহাজারীর উদালিয়াতে সন্ত্রাসীর রাজত্ব কায়েম করতে যুবককে রক্তাক্ত জখম লক্ষীপুর বাসীকে মার্কেন্টাইল ইসলামী লাইফ ইন্স্যুঃ পক্ষ থেকে ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা লক্ষীপুর বাসীকে জেলা মানবাধিকার সংস্থার পক্ষ থেকে ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা-সময়ের ধারা
ফরিদপুরে রয়েছে হযরত মুহাম্মদ (স:) এর দাড়ী মুবারক

ফরিদপুরে রয়েছে হযরত মুহাম্মদ (স:) এর দাড়ী মুবারক

আনিচুর রহমান, ফরিদপুর : ফরিদপুর জেলা শহরের দড়গা বাড়ি জামে মসজিদ রয়েছে। ৪২৫ বছরের পুরোনো এই মসজিদটি। মসজিদ সংরক্ষনে থাকা এবং দড়গাবাড়ীর লোকজন জানান, মোগল আমলের সুবেদার বাকের শাহ ১০১৩ হিজড়ীতে নির্মান করেছিলেন এই মসজিদটি। ৪২৫ বছরের পুরোনো মসজিদটি ছিলো সম্পূর্ন পাথড়ে নির্মিত। মসজিদটি পদ্মারনিকটবর্তী হওয়ায় মাটি ধ্বসে ধীরে ধীরে মসজিদের কিছু অংশ ভেঙ্গে যেতে থাকে। ১৯৭৮ সালে গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের ভারপ্রাপ্ত সদস্য প্রফেসর সৈয়দ আরী আহসান দড়গা বাড়ির ঐতিহাসিক জামে মসজিদটি পূন: নির্মানের উদ্যোগ নেন। এলাকাবাসীর সহযোগীতায় নতুন রূপে মসজিদটি নির্মান করা হয়। নতুন মসজিদ নির্মানে ব্যবহার করা হয়েছে পুরোনো মসজিদের ব্যবহার করা অনেক পাথড়ের অংশগুলো। মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সেলিম রেজা জানান , সুবেদার বাকের শাহ ১০১৩ হিজড়ীতে যখন দড়গাবাড়ি জামে মসজিত প্রতিষ্ঠা করেন তখন তিনি সেই মসজিদে সংরক্ষন করেছিলেন কালো পাথড়ে খোদাই করা কোরআনের আয়াত সুরা জুম্মাহ । সেই ফলকটি নতুন মসজিদেও সংরক্ষন করা আছে। সুবেদার বাকের শাহ সেই সময়ে ইসলামের কিছু দূর্লভ জিনিস সংরক্ষন করেছিলেন। যা হযরত শাহ আলী বাগদাদী ইসলাম ধর্ম প্রচারের জন্য ইরাকের বাগদাদ শহর থেকে এদেশে ইসলাম ধর্ম প্রচারের জন্য আসার সময় সাথে করে নিয়ে এসেছিলেন। ইসলাম ধর্ম প্রচারের জন্য যখন হযরত শাহ আলী বাগদাদী বাংলাদেশে আসেন তখন তার সাথে সফরসঙ্গী হিসেবে আরো ছিলেন ১০০ জন সঙ্গীসাথী। এখনও মসজিদে সেই সমস্ত দূর্লভ জিনিস সংরক্ষিত আছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো , আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (স:) এর দাড়ী মুবারক, হযরত আলী (রা:) এর মোচ মুবারক, হযরত শাহ মাদার (র:) এর ফতুয়া,হযরত আব্দুল কাদের জিলানী (র:)এর জামা মুবারক, হযরত হাসান (রা:) এর জুলফু মুবারক, হযরত হুসাইন (রা:) এর জুলফু মুবারক সহ রয়েছে হযরত শাহ আলী বাগদাদী এর ব্যবহৃত পাগড়ীসহ কিছু জিনিসপত্র । এই মসজিদের একটি ইতিহাস রয়েছে।
হযরত শাহ আলী বাগদাদী ইসলাম ধর্ম প্রচারের জন্য ইরাকের বাগদাদ থেকে ভারতের দিল্লি হয়ে বাংলাদেশের ফরিদপুর জেলার গেড়দা অবস্থান নেন। ফরিদপুরের হিন্দু রাজা হরিশচন্দ্র হযরত শাহ আলী বাগদাদীর কাছে ইসলাম ধর্ম গ্রহন করেন। তখন সেই রাজার নাম হয় গুল মোহাম্মদ সওদাগর। হযরত শাহ আলী বাগদাদী সেই রাজার মেয়ে বুজুর্গ বিবিকে বিবাহ করেন।
ফরিদপুর জেলা গেড়দা থেকে হযরত শাহ আলী বাগদাদী পরবর্তীতে ঢাকা চলে যান। সেখানেই তিনি মুত্যুবরন করেন। এখনও ঢাকায় মীরপুর ১ নাম্বারে তার স্মৃতিবিজরিত স্থানটি শাহআলী দরড়া হিসেবে ব্যাপক পরিচিত।
ফরিদপুর জেলাশহরের গেড়দা দড়গা বাড়িতেই রয়েছে বুজুর্গ বিবিসহ তার দুই সন্তান শাহ ওসমান (র:)ও শাহ হানিফ (র:) কবর ।

সময়ের ধারা নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com