রবিবার, ১৮ অক্টোবর ২০২০, ০৮:৪২ অপরাহ্ন

12
অবশেষে ছাত্র আন্দোলনের মুখে হাটহাজারী বড় মাদ্রাসা বন্ধ ঘোষণা !

অবশেষে ছাত্র আন্দোলনের মুখে হাটহাজারী বড় মাদ্রাসা বন্ধ ঘোষণা !

13

মো.আলাউদ্দীনঃ

অবশেষে ছাত্র আন্দোলনের মধ্যে এবার হাটহাজারী উপজেলার আল জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসা বন্ধের ঘোষণা শিক্ষা মন্ত্রণালয় । বৃহস্পতিবার(১৭ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সহকারী সচিব সৈয়দ আসগর আলী স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এ আদেশ দেয়া হয়।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওই প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, কতিপয় শর্তসাপেক্ষে গত ২৪ আগস্ট কওমি মাদ্রাসাসমূহের কিতাব বিভাগের কার্যক্রম শুরু ও পরীক্ষা গ্রহণের জন্য অনুমতি প্রদান করা হয়েছিলো।কিন্তু আরোপিত শর্তসমূহ যথাযথভাবে পালন না হওয়ায় আল জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম মাদ্রাসা প্রকাশ হাটহাজারী বড় মাদ্রাসা পুনরাদেশ না দেয়া পর্যন্ত নির্দেশক্রমে বন্ধ করা হলো।

উল্লেখ্য, গতকাল বুধবার  দুপুর থেকে মাওলানা আনাস মাদানীকে বহিষ্কারসহ বিভিন্ন দাবিতে হাটহাজারী মাদ্রাসায় বিক্ষোভ শুরু করে ছাত্ররা।পরে রাতে মাদ্রাসার মহাপরিচালক আল্লামা আহমদ শফীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত শুরার মিটিংয়ে প্রতিষ্ঠানটির মহাপরিচালক আল্লামা আহমদ শফীর ছেলে মাদ্রাসার শিক্ষক মাওলানা আনাস মাদানীকে স্থায়ী ভাবে বহিস্কার করা, আন্দোলন কারী ছাত্রদের কোন হয়রানি করা হবে না, এবং যাদের হয়রানি করা হয়েছে তাদের ভর্তির সুযোগ দেয়া ও বাকী দাবী পুরন করার জন্য আগামী শনিবার পুর্নাঙ্গ শুরা ডাকা সহ মোট তিনটি সিদ্ধান্ত নেয়া

হয়েছিলো।এর প্রেক্ষিতে ছাত্রদের আন্দোলন আপাতত শনিবার পর্যন্ত স্থগিত করা হলেও ক্লাস বর্জন চলবে বলে জানিয়েছিলেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।কিন্তু বৃহস্পতিবার(১৭ সেপ্টেম্বর)বেলা সাড়ে এগারোটার দিকে শিক্ষার্থীদের দাবি পূরণ না হওয়ায় মাদরাসার মাঠে পুনরায় অবস্থান নেয় তারা। এসময় মাইকিং করে সাধারণ ছাত্রদেরকে আন্দোলনের যোগ দিতেও বলা হয়। অপরদিকে রণ সাজে সজ্জিত আইন-শৃংখলা বাহিনীর অসংখ্য সদস্যকে জামেয়ার আশেপাশে  সতর্ক অবস্থানে থাকতে দেখা গেছে।

আন্দোলনকারীরা এসময় মাদ্রাসার সকল সিনিয়র শিক্ষকদের রুমের দরজা ভেঙ্গে জামেয়ার পরিচালক শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী হাফিজাহুল্লাহ (কার্যালয়) সহ মাদ্রাসার শিক্ষক আল্লামা শেখ আহমদ সাহেব দা.বা.,আল্লামা আহমদ দীদার কাসেমী,মুফতি জসীমউদ্দিন ,মাওলানা ওমর,মাওলনা আনাস মাদানী,মাওলানা নুরুল ইসলাম জাদীদ,মাওলানা ওসমান,মুফতি আবু সাঈদ,মাওলানা আজিজ তকী,মাওলানা ইসহাক,মাওলানা তরীক ,মাওলানা বশিরের রুমে হামলা আসবাবপত্র আসবাবপত্র তছনছ করে।

পুনরায় আন্দোলন এবং হামলার সংবাদ পেয়ে উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ, র‌্যাব সহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা দ্রুত মাদ্রাসায় পৌঁছালেও আর্দোলনকারীরা মাদরাসার সব গেইট বন্ধ করে দেয়ায় তারা ভেতরে প্রবেশ করতে পারেনি।

২য় দিনের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের প্রেক্ষিতে আল্লামা শেখ আহমদ বলেন, তিনি ছাত্রদের সব দাবি মেনে নিয়েছেন এবং ছাত্রদের সাথে আছেন।

আন্দোলনকারীরা দাবী বাস্তবায়নের জন্য শনিবারের শূরার বৈঠকের অপেক্ষয় আছে ।এর মধ্যবর্তি সময়ে কোন কূটকৌশল মেনে নেবেনা বলে হুশিয়ারীও দিয়েছিলো আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা । একটি সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার মাগরিবের নামাযের পর এই পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে শুরা কমিটির একটি জরুরী বৈঠকও অনুষ্ঠিত হবার কথা ছিলো।

সময়ের ধারা নিউজটি শেয়ার করুন

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com