রবিবার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ০৭:৩০ অপরাহ্ন

12
নেতানিয়াহুর ওপর বিশ্বাস হারিয়ে ইসরায়েলি পর্যটনমন্ত্রীর পদত্যাগ

নেতানিয়াহুর ওপর বিশ্বাস হারিয়ে ইসরায়েলি পর্যটনমন্ত্রীর পদত্যাগ

13

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর ওপর ভরসা হারিয়ে পদত্যাগ করেছেন দেশটির পর্যটনমন্ত্রী আসাফ জামির। শুক্রবার এক টুইটে তিনি নিজেই এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। ব্লু অ্যান্ড হোয়াইট পার্টির সদস্য আসাফের পদত্যাগে নেতানিয়াহু সরকারের ওপর চাপ আরও বাড়ল বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। করোনাভাইরাসের মতো বৈশ্বিক মহামারি নিয়ন্ত্রণের চেয়ে ব্যক্তিগত স্বার্থ ও সমস্যাগুলোকেই নেতানিয়াহু বেশি গুরুত্ব দেন বলে অভিযোগ করেছেন আসাফ জামির। টুইটারে তিনি লিখেছেন, ‘আমি এমন সরকারে আর থাকতে পারি না, যার প্রধানের ওপর এক আউন্সও (১ আউন্স= ২৮.৩৫ গ্রাম) বিশ্বাস নেই।’

তিনি বলেন, ‘আমি দুর্ভাগ্যজনকভাবে নিশ্চিত হয়েছি যে, করোনাভাইরাস সংকট এবং এর মারাত্মক প্রভাবগুলো প্রধানমন্ত্রীর কাছে অগ্রাধিকারে তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে। ব্যক্তিগত এবং আইনি সমস্যাগুলোই নেতানিয়াহুর কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।’ ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবিতে টানা কয়েকমাস ধরে বিক্ষোভ চলছে ইসরায়েলে। মহামারি মোকাবিলায় ব্যর্থতার অভিযোগের পাশাপাশি তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির একাধিক মামলার বিচার চলছে দেশটিতে।

নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে ধনী বন্ধুদের কাছ থেকে ইতিবাচক খবর প্রকাশের আশ্বাসে দামী উপহার নেয়ার অভিযোগ রয়েছে। বিরোধীরা বিষয়টিকে ঘুষ হিসেবে উল্লেখ করেছেন। তবে নেতানিয়াহু ও তার দল লিকুদ পার্টি এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছে। তাদের মতে, জনপ্রিয় ডানপন্থী এ নেতাকে ক্ষমতাচ্যুত করতেই এসব অভিযোগ আনা হয়েছে।

চলতি সপ্তাহে মহামারির মধ্যে বিক্ষোভ বন্ধের একটি আইন পাস করেছে ইসরায়েল সরকার। সমালোচকরা এটিকে নেতানিয়াহু-বিরোধী বিক্ষোভ দমনের কৌশল হিসেবে অভিহিত করেছেন। তবে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর দাবি, করোনার সংক্রমণ রোধেই এ পদক্ষেপ নিয়েছে তার সরকার। মহামারির শুরুতেই সীমান্ত ও ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধসহ গোটা দেশ লকডাউন করে বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছিল ইসরায়েল। মে মাস নাগাদ সেখানে দৈনিক সংক্রমণের সংখ্যা ১০-এর ঘরে নেমে এসেছিল।

কিন্তু এটিকে চূড়ান্ত সাফল্য ধরে নিয়ে ওই মাসেই প্রায় সব বিধিনিষেধ তুলে নিয়ে অর্থনৈতিক কার্যক্রম পুরোদমে চালু করে ইসরায়েলি সরকার। এরপর থেকেই সেখানে হু হু করে বাড়তে শুরু করেছে আক্রান্তের সংখ্যা।

বর্তমানে দৈনিক সাত হাজারের বেশি রোগী শনাক্ত হচ্ছে ইসরায়েলে। স্থানীয় হাসপাতালগুলো শিগগিরই ভরে উঠবে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। আর যে অর্থনীতির জন্য লকডাউন তুলে নেয়া, সেটিও চলছে একেবারে ঢিমেতালে।

প্রায় ৯০ লাখ জনসংখ্যার দেশ ইসরায়েলে ইতোমধ্যই করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা আড়াই লাখ ছাড়িয়েছে। মারা গেছেন অন্তত ১ হাজার ৬০০ জন। সম্প্রতি প্রতি লাখে আক্রান্তের হিসাবে বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ দেশ হয়ে উঠেছে তারা।

সময়ের ধারা নিউজটি শেয়ার করুন

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com