শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ০৬:১৬ অপরাহ্ন

12
কর্মপ্রিয় আলোকিত মানুষ যুগ্ন সচিব মনছুরুল আলম (হীরা)

কর্মপ্রিয় আলোকিত মানুষ যুগ্ন সচিব মনছুরুল আলম (হীরা)

13

বিশেষ প্রতিনিধি: সরকারী চাকরিতে কর্মদক্ষতার সাথে সততা বজায় রেখে একজন কর্মপ্রিয় আলোকিত মানুষ হিসেবে সর্বমহলে পরিচিতি লাভ করেছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রকল্প পরিচালক (যুগ্মসচিব) মো: মনছুরুল আলম (হীরা)। তিনি অত্যন্ত বুদ্ধিদীপ্ত, কর্মঠ অনন্য আলোকিত মানুষ। মো. মনছুরুল আলম (হীরা) ১০ অক্টোব ১৯৬৩ খ্রিস্টাব্দে ঐতিহ্যবাহী টাঙ্গাইল জেলার কালিহাতি উপজেলার ইছাপুর গ্রামে এক সম্ভান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। পিতা আলহাজ মো. এমদাদ হোসেন এবং মাতা বেগম মরিয়ম বেগম।
তিনি ছোট কাল থেকেই অত্যন্ত মেধাবী ছিলেন। কৃতিত্বের সাথে প্রাথমিকের গন্ডি পার করেন ইছাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় হতে। পরবর্তীতে ১৯৭৯ খ্রিস্টাব্দে ফুলতলা উচ্চ বিদ্যালয় হতে এসএসসি, ১৯৮১ খ্রিস্টাব্দে আলাউদ্দিন সিদ্দিকী মহাবিদ্যালয় হতে এইচএসসি এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে ১৯৮৬ খ্রিস্টাব্দে অর্থনীতিতে সম্মানসহ এম.এস.এস এবং ডিপ্লোমা ইন এডুকেশন ও এমএড, ইনস্টিটিউট অব এডুকেশন অ্যান্ড রিসার্চ (আইইআর) সফলতার সাথে সম্পন্ন করেন। তিনি স্বল্পকাল বেসরকারি সংস্থায় চাকরি করেন। এরপর ১৩তম বিসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে ১৯৯৪ খ্রিস্টাব্দের ২৫ এপ্রিল শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ে সরকারী চাকরিতে যোগদান করেন। সেখানে কয়েক বছর দায়িত্ব পালন করে ২০০২ খ্রিস্টাব্দে জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোতে প্রেষণে প্রকল্প পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৩ খ্রিস্টাব্দে সিনিয়র সহকারী সচিব হিসেবে পদোন্নতি লাভ ও বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। মাঝে কালিহাতি উপজেলার বাগুটিয়ায় বঙ্গবন্ধু টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং-কলেজ স্থাপন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি সুদীর্ঘ চাকরি জীবনে রাষ্ট্রীয় বহু গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন।
এরপর সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ে দায়িত্ব পালন কালীন সময়ে টাংগাইল জেলার সড়ক ও জনপথ বিভাগের আওতায় (১) এলেঙ্গা- জামালপুর সড়ক প্রশস্ত করণ প্রকল্প, (২) এলেঙ্গা Ñভূয়াপুর- গাবসারা সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প, (৩) ভূয়াপুর-ঘাটাইল- সাগরদিঘী সড়ক ১২ ফুট থেকে ১৮ ফুটে উন্নীতকরণ প্রকল্প (৪) টাংগাইল- দেলদুয়ার- পাকুল্লা- দেলদুয়ার- ভাতকুড়া- বাসাইল এই তিনটি সড়ককে ১২ ফুট থেকে ১৮ ফুটে উন্নীতকরণ প্রকল্পসহ নতুন প্রকল্প তৈরী ও অনুমোদনের প্রক্রিয়া গ্রহণে মো: মনছুরুল আলম (হীরা) প্রত্যক্ষভাবে জড়িত ছিলেন। এ ছাড়াও কালিহাতী- রতনগঞ্জ- বল্লা সড়ককে ১২ ফুট থেকে ১৮ ফুটে উন্নীতকরণে তিনি মন্ত্রণালয় থেকে প্রায় ১৩ কোটি টাকা বরাদ্দের ব্যবস্থা করেন। বর্তমানে টাংগাইল জেলার বিভিন্ন সড়কে ৪২টি ব্রিজ ও ১৭টি কালর্ভাট তৈরীর নিমিত্ত একটি নতুন প্রকল্প তৈরী ও অনুমোদনের ব্যাপারে প্রত্যক্ষ ভূমিকা পালন করছেন। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে যুগ্মসচিব হিসেবে কর্মকালীন সময়ে টাংগাইল জেলার ১২টি উপজেলায় ১০৭০টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মাণের জন্য মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদনের ব্যবস্থা করেন। কালিহাতীতে নির্মাণাধীন কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রটি প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের তৎকালীন মাননীয় মন্ত্রীর নিকট থেকে অনুমোদন করিয়ে নেন। বর্তমানে তিনি প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ে “৪০টি উপজেলায় ৪০টি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও চট্টগ্রামে ১টি মেরিন টেকনোলজি স্থাপন” প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালকের দায়িত্ব পালন করছেন।
মনছুরুল আলম (হীরা) পেশাগত দায়িত্ব ও ব্যক্তিগত প্রয়োজনে ভারত, নেপাল, থাইল্যান্ড, ফিলিপাইন, দুবাই, চীন, জাপান, ভিয়েতনাম, অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল, ইউএসএ, ইউকে, নেদারল্যান্ড, জার্মান, সুইডেন, ফ্রান্স, মালয়েশিয়া, ইতালি, সেনেগাল, মোজাম্বিক, বেলজিয়াম, বেনিন ও দক্ষিণ আফ্রিকাসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ ভ্রমন করেছেন।
তাঁর সহধর্মিণী মিসেস জরিনা খাতুন রীনা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে সম্মানসহ এমএসএস সম্পন্ন করে শিপিং কোম্পানির জেনারেল ম্যানেজার ছিলেন। বর্তমানে ‘পারফেক্ট লজিস্টিক’ শিপিং এবং ফ্রেইট ফরওর্য়াডিং কোম্পানির চেয়ারমান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।
ব্যক্তিগত জীবনে তিনি দুই কন্যার জনক। বড় কন্যা মল্লিকা তাহসিন মীম, শতভাগ বৃত্তি নিয়ে ইউনাইটেড ওর্য়াল্ড কলেজ, নেদারল্যান্ড থেকে এ-লেভেল (আইভি) সম্পন্ন করে বর্তমানে আমেরিকায় আইটিতে মাস্টার্স-এ অধ্যয়নরত।
কনিষ্ঠ কন্যা আনিকা তাহসিন অত্যন্ত মেধাবী, ইউনাইটেড ওয়ার্ল্ড কলেজ মাহেন্দ্র, পুনে ইন্ডিয়াতে বৃত্তি নিয়ে এ-লেভেল (আইভি) সম্পন্ন করে বর্তমানে আমেরিকার টহরাবৎংরঃু ড়ভ জড়পযবংঃবৎ -এ শতভাগ বৃত্তি নিয়ে বায়োকেমিস্ট্রিতে চতুর্থ বর্ষে অধ্যয়নরত। সমাজ সেবায় অনন্য অবদান : ফুলতলা উচ্চবিদ্যালয় ও মরিয়ম স্মৃতি উচ্চবিদ্যালয়ে আর্থিক সহযোগিতা প্রদান। এলাকার শিক্ষা-সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে তার প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ পৃষ্ঠপোষকতা রয়েছে। এছাড়াও সদস্য, অফিসার্স ক্লাব, ঢাকা। আজীবন সদস্য, বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতি। আজীবন সদস্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অর্থনীতি বিভাগ অ্যালামনাই এসোসিয়েশন। আজীবন সদস্য, মাস্টার দা সূর্যসেন হল অ্যালামনাই এসোসিয়েশন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। সাবেক ট্রেজারার, ত্রয়োদশ বিসিএস ফাউন্ডেশন। সাবেক ট্রেজারার, সচিবালয় বৃহত্তর ময়মনসিংহ কর্মকর্তা-কর্মচারি কল্যাণ সমিতি। সাবেক সাধারণ সম্পাদক, ঢাকাস্থ কালিহাতি উপজেলা সমিতি। সাবেক সাধারণ সম্পাদক, টাঙ্গাইল জেলা সমিতি, ঢাকা। সাবেক ভাইস-প্রেসিডেন্ট, বিসিএস ইকনোমিক এসোসিয়েশন। বর্তমান সাধারণ সম্পাদক, টাঙ্গাইল জেলা সমিতি, ঢাকা এবং বর্তমান সভাপতি, ত্রয়োদশ বিসিএস ফোরাম।
জানতে চাইলে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রকল্প পরিচালক (যুগ্মসচিব) মনছুরুল আলম (হীরা) এ প্রতিবেদকে বলেন, মানুষের সেবার কোন বিকল্প নেই। মানুষের সেবা করেই এগিয়ে যেতে হবে। আমি স্বপ্ন দেখি একটি সুন্দর সকালের। যেখানে বর্তমান প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিকশিত হতে হবে। মাতা মাতৃভূমি ও মাতৃভাষার প্রতি আমাদের শ্রদ্ধাশীল হতে হবে। দেশের সেবায় আত্ম নিয়োগ করতে হবে এবং দেশের মানুষকে ভালবাসতে হবে। সবশেষে তিনি বলেন,নিজ কর্মক্ষেত্রে সততা অক্ষুন্ন রেখেই অভিষ্ট লক্ষ্যে পৌছাতে হবে।

সময়ের ধারা নিউজটি শেয়ার করুন

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com