বৃহস্পতিবার, ০৬ মে ২০২১, ০৭:৩৫ পূর্বাহ্ন

আদালত থেকে ফুল হাতে হাসিমুখে বাড়ি ফিরলেন ৫৪ দম্পতি

আদালত থেকে ফুল হাতে হাসিমুখে বাড়ি ফিরলেন ৫৪ দম্পতি

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন মামলায় স্বামীদেরকে কারাগারে না পাঠিয়ে পৃথক ৫৪টি মামলা আপোষে নিষ্পত্তি করে দিয়েছেন আদালত। তবে আদালত ১১টি মামলায় অভিযুক্ত স্বামীদের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড প্রদান করেছেন।

আজ সোমবার দুপুরে ৬৫টি পৃথক মামলার একসঙ্গে দেওয়া রায়ে সুনামগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. জাকির হোসেন এই আদেশ দেন। রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সুনামগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট নান্টু রায়।

আদালত সূত্রে জানা যায়, যৌতুকসহ নানা কারণে নির্যাতনের শিকার হয়ে গত কয়েক বছরে সুনামগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলার ৬৫ জন নারী সংসার থেকে বিতাড়িত হয়ে তাদের স্বামীর বিরুদ্ধে পৃথকভাবে আদালতে মামলা করেছিলেন। নির্যাতনের শিকার হয়ে নারীরা তাদের ছোট ছোট শিশুদের নিয়ে অনিশ্চিত জীবন যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছিলেন। অনিশ্চিত জীবন থেকে ৫৪ স্ত্রীকে তাদের স্বামীর সঙ্গে আপোষ করিয়ে দিয়ে সংসার জীবন ফিরিয়ে দিলেন।

তবে ১১ জন নির্যাতিত স্ত্রী ও তাদের সাক্ষীরা অভিযুক্ত স্বামীদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেন। ওই ১১ স্বামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাদেরকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।

আপাষে নিষ্পত্তিকৃত মামলার বাদী-বিবাদী ও কয়েকজন স্বজন আদালতকে ধন্যবাদ জানিয়েছে বলেছেন, ছোটখাটো ভুল ও স্বামী-স্ত্রীর রাগারাগির কারণে এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছিল। মামলার কারণে যেসব সংসার ধংসের পথে গিয়েছিল আজ সেই সংসারগুলো একত্রিত হয়েছে। এই রায়ে পরিবারে শান্তি ফিরে এসেছে। কারণ এসব মামলার সুষ্ঠু নিষ্পত্তি না হলে ছোট শিশুরা পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে অযত্নে অবহেলায় ভবিষ্যৎ অন্ধকারে নিপতিত হতো। আদালতের এই রায় প্রশংসার দাবিদার বলে মনে করেন তারা।

সুনামগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট নান্টু রায় বলেন, ‘আদালত পৃথক ৬৫টি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন মামলায় রায় দিয়েছেন। ১১টি মামলায় ১১ জন স্বামীকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড প্রদান করেছেন। তবে ৫৪টি মামলায় স্বামী-স্ত্রীকে আপোষের মাধ্যমে নিষ্পত্তি করে দিয়েছেন। এর আগেও তিনি এরকম যুগান্তকারী রায় দিয়েছেন।’

তিনি বলেন, ‘রায় ঘোষণার পর আদালতের পক্ষ থেকে ৫৪ দম্পতিকে ফুল ও তাদের সন্তানদের চকলেট উপহার দেওয়া হয়। ফুল হাতে সন্তান ও স্বজনদের সঙ্গে হাসিমুখে বাড়ি ফেরেন তারা।’

উল্লেখ্য, গত বছরের ২৫ নভেম্বর একই আদালতের বিচারক মো. জাকির হোসেন একদিনে পৃথক ৪৭টি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন মামলায় ৪৭টি পরিবারকে আপোষের মাধ্যমে তাদের স্বাভাবিক জীবনে ফেরত পাঠাতে সক্ষম হয়েছিলেন। এ নিয়ে জেলায় মোট ১০১ টি পরিবার ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা পেল।

 

সময়ের ধারা নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com