রবিবার, ২৫ Jul ২০২১, ০৭:৪৩ অপরাহ্ন

মওদুদের মৃত্যুতে পেছালো অভিযোগ গঠন শুনানি

মওদুদের মৃত্যুতে পেছালো অভিযোগ গঠন শুনানি

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নাইকো দুর্নীতির মামলার আসামি ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ মারা যাওয়ায় অভিযোগ গঠনের শুনানি পিছিয়ে আগামী ২৫ মার্চ ধার্য করেছেন আদালত। আজ বৃহস্পতিবার ঢাকার ৯ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক শেখ হাফিজুর রহমান শুনানি শেষে এ আদেশ দিয়েছেন।

এদিন মামলার অভিযোগ গঠন শুনানির দিন ধার্য ছিল। আইনজীবী মামলার আসামি ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ মারা গেছেন মর্মে তাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়ার আবেদন করেন। শুনানি শেষে বিচারক আগামী ২৫ মার্চ মওদুদ আহমেদ মারা যাওয়া সংক্রান্ত পুলিশ প্রতিবেদন দাখিল এবং অভিযোগ গঠন শুনানির দিন ধার্য করেন। এদিন কেরানীগঞ্জের কারাভবনে নবনির্মিত ২ নম্বর ভবনে স্থাপিত অস্থায়ী এজলাসে এ মামলায় শুনানির অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে গত ১৬ ফেব্রুয়ারি এ মামলার প্রধান আসামি খালেদা জিয়াকে ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যাহতি দেন একই আদালত। এরপর গত ২ মার্চ দুদকের পক্ষে প্রসিকিউটর মোশারফ হোসেন কাজল চার্জগঠনের পক্ষে শুনানি করেন। শুনানিতে তিনি আদালতে অভিযোগ উত্থাপন করে খালেদা জিয়াসহ ৯ জনের পক্ষে অভিযোগ গঠনের প্রস্তাব করেন। একইদিন খালেদা জিয়ার অব্যাহতি চেয়ে আইনজীবী অ্যাডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার আংশিক শুনানি করেন।

মামলার অপর আসামিরা হলেন, বিতর্কিত ব্যবসায়ী তারেক রহমানের বন্ধু গিয়াস উদ্দিন আল মামুন, সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী একে এম মোশাররফ হোসেন ও সাবেক সিনিয়র সহকারী সচিব সি এম ইউছুফ হোসাইন, ঢাকা ক্লাবের সাবেক সভাপতি সেলিম ভূঁইয়া (সিলভার সেলিম), জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সচিব খন্দকার শহীদুল ইসলাম, নাইকোর দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট কাশেম শরীফ, তখনকার প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও বাপেক্সের সাবেক মহাব্যবস্থাপক মীর ময়নুল হক।

২০০৭ সালের ৯ ডিসেম্বর বিরুদ্ধে তেজগাঁও থানায় মামলাটি দায়ের করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। মামলাটির তদন্তের পর ২০০৮ সালের ৫ মে খালেদা জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। মামলার অপর দুই আসামি বিচার চলাকালীন মারা গেছেন।

অভিযোগ গঠনের বৈধতা চ্যলেঞ্জ করে খালেদা জিয়া হাইকোর্টে রিট আবেদন করলে ২০০৮ সালের ৯ জুলাই হাইকোর্ট নিম্ন আদালতের কার্যক্রম স্থগিত করে রুল জারি করেন। ২০১৫ সালের ১৮ জুন হাইকোর্ট রুল ডিচার্জ করে স্থাগিতাদেশ প্রত্যাহার করেন।

ক্ষমতার অপব্যবহার করে তিনটি গ্যাসক্ষেত্র পরিত্যক্ত দেখিয়ে কানাডিয় কোম্পানি নাইকোর হাতে ‘তুলে দেওয়ার’ অভিযোগে রাষ্ট্রের প্রায় ১৩ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকার ক্ষতির অভিযোগে মামলাটি দায়ের করা হয়।

 

সময়ের ধারা সংবাদটি শেয়ার করুন এবং আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com