সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ০৬:৩৩ অপরাহ্ন

হরতাল ঢিলেঢালা, তাও সতর্ক পুলিশ

হরতাল ঢিলেঢালা, তাও সতর্ক পুলিশ

হেফাজতে ইসলামের ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ঢিলেঢালাভাবে পালিত হচ্ছে। তারপরও সতর্ক অবস্থানে রয়েছে পুলিশ। নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জস্থ ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সাইনবোর্ড এলাকায় হরতাল সমর্থনকারী একটি দল মাথাচাড়া দিয়ে উঠলেও ছত্রভঙ্গ করে দিয়েছে পুলিশ। এ সময় টিয়ারশেল এবং ফাঁকা গুলি ছোড়া হয়।

আজ রোববার সারা দেশে হরতালের ডাক দিয়েছে হেফাজত ইসলাম। হরতাল হলেও স্বাভাবিক নিয়মে চলছে সবকিছু। তবে রাজধানীতে গণ পরিবহন কিছুটা কম রয়েছে। এখনও কোনো পিকেটিংয়ের খবর পাওয়া যায়নি।

রাজধানীর মিরপুর, ধানমন্ডি, যাত্রাবাড়ী এলাকায় গণপরিবহস স্বাভাবিকভাবেই চলছে। গুলিস্তান, মতিঝিল এলাকায় পুলিশের উপস্থিতি বেশি। হরতাল প্রতিরোধ ও যেকোনো অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে পুলিশ।

সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার ইমতিয়াজ যাত্রাবাড়ী এলাকায় দায়িত্বে আছেন। তিনি জানান, পরিস্থিতি স্বাভাবিক, তার আমরা সতর্ক অবস্থানে আছি। িএখন পর্যন্ত পিকেটিং বা মিছিল হয়নি।

কাওরান বাজার ও ফার্মগেট এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বাস, প্রাইভেটকার, সিএনজি, মোটরসাইকেলসহ সবধরনের যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। কারওয়ান বাজারের কাঁচাবাজারে মানুষের ভিড়। এছাড়া কর্মজীবী মানুষ অফিস বা কাজের জন্য বের হওয়াসহ যাবতীয় কার্যক্রম স্বাভাবিক রয়েছে।

সকালে ঢাকার বাইরে হেফাজতের নেতাকর্মীরা অবরোধের সৃষ্টি করে। নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক এ অবরোধ করা হয়। টায়ার, গাছের গুঁড়ি ও বাঁশে আগুন জ্বালিয়ে সড়কের কয়েকটি স্থানে বিক্ষোভ করেন হেফাজতের নেতা-কর্মীরা। সকাল থেকেই তারা সিদ্ধিরগঞ্জের মৌচাক এলাকায় জড়ো হতে শুরু করেন। তাদের হাতে লাঠিসোঁটা ছিল। শিমরাইল ইউটার্ন এলাকায় অবস্থান নিয়ে তারা টায়ার, বাঁশ, কাঠ, চৌকি, বেঞ্চসহ বিভিন্ন আসবাবপত্রে আগুন ধরিয়ে দেন। যে কারণে মহাসড়কের যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পুলিশের উপস্থিতিতেই হেফাজতের নেতা-কর্মীরা এলাকাটিতে অবরোধ সৃষ্টি করে। বিভিন্ন পথচারীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তারা ডিআইটি, চাষাঢ়া, সাইনবোর্ড, শিমরাইলসহ বিভিন্ন এলাকায় বিপুলসংখ্যক পুলিশ দেখেছেন।

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, হরতালের সমর্থনে মহাসড়কের কয়েকটি স্থানে অবরোধ তৈরি করে বিক্ষোভ করেছেন হেফাজতের নেতা-কর্মীরা। বিভিন্ন এলাকায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে বিপুল পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তারা মহাসড়ক থেকে হরতালকারীদের সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে। হেফাজতের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তারা সহযোগিতা করার আশ্বাস দিয়েছেন।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমনের প্রতিবাদে বায়তুল মোকাররম, হাটহাজারীসহ সারা দেশে হেফাজতের আন্দোলনরতদের ওপর হামলা ও ৪ জন নিহত হওয়ার প্রতিবাদে আজ রোববার সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডাকে হেফাজতে ইসলাম। একই ঘটনায় গতকাল শনিবার সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করে সংগঠনটি। হেফাজতের হরতালে আনুষ্ঠানিকভাবে সমর্থন না দিলেও তা যৌক্তিক বলে দাবি করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

 

সময়ের ধারা নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com