বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:১৫ অপরাহ্ন

কিছু কর্মকর্তার কারণে ইমেজ সংকটে পুলিশ

কিছু কর্মকর্তার কারণে ইমেজ সংকটে পুলিশ

দেশে বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের শুরুর দিকে পুলিশকে মানবতার বারতা নিয়ে মানুষের পাশে থাকতে দেখা গেছে। কর্মহীন মানুষকে খাদ্য সহায়তাসহ নানাভাবে দেশজুড়ে পুলিশ মানুষের সাহায্যে এগিয়ে আসে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কতিপয় পুলিশের অনৈতিক ও অপরাধমূলক কর্মকা-ের কারণে পুলিশের সেই অর্জন ম্লান হোক এটা আমরা চাই না। কতিপয় পুলিশ চাঁদাবাজি, মাদক ব্যবসা, ধর্ষণ ও ধর্ষণচেষ্টা, অপহরণ, খুন, ছিনতাই, নির্যাতন, ভয় দেখিয়ে অর্থ আদায়, মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়া, যৌন হয়রানিসহ বিভিন্ন অপরাধে জড়িয়ে গোটা পুলিশ বাহিনীর ইমেজ বা ভাবমূর্তিকে প্রশ্নবিদ্ধ করে তুলছে।

পুলিশের সবচেয়ে বড় ইউনিট ঢাকা মহানগর পুলিশ। প্রায় ৩৫ হাজার সদস্য ডিএমপিতে নানা পদে কাজ করছেন। এই ইউনিটে পুলিশের বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতির খবর রাখতে একজন ডিসির নেতৃত্বে একটি বিভাগই রয়েছে। গত বছর এই ইউনিটে এক হাজার ৯০১ পুলিশ সদস্য লঘু ও গুরুদ- পেয়েছেন। তার মধ্যে লঘু শাস্তি পেয়েছেন এক হাজার ৫৯৩ জন। বড় শাস্তি হয়েছে ৩০৮ জনের। আর মাদকে জড়িয়ে পড়াসহ নানা অপরাধে এক বছরে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে ২৬ পুলিশ সদস্যসহ ৮০ জনকে। শাস্তির মুখোমুখি বেশিরভাগ পুলিশ সদস্য নিম্নপদে কর্মরত।

ঢালিউডের জনপ্রিয় নায়িকা পরীমনির সঙ্গে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের এডিসি গোলাম সাকলায়েনের প্রেমের সম্পর্ক, সাকলায়েনের বাসায় পরীমনির ১৮ ঘণ্টা কাটানোসহ সংশ্লিষ্ট আরও বেশকিছু ঘটনা পুলিশকে চরমভাবে বিব্রত করে। এ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার মধ্যে সাকলায়েনকে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ থেকে সরিয়ে পুলিশ অর্ডার ম্যানেজমেন্টে (পিওএম) বদলি করা হয়।

একাধিক পুলিশ কর্মকর্তা সাকলায়েনের এ ঘটনাকে নৈতিক স্খলনজনিত অপরাধ হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন। তারা এও বলেছেন, ঘটনাটি পুলিশ বাহিনীর জন্য লজ্জার। একটি মামলার তদন্ত তদারক কর্মকর্তা হিসেবে ভিকটিমকে এভাবে নিজ বাসায় ডাকা এবং একসঙ্গে দীর্ঘক্ষণ অবস্থান নীতি-নৈতিকতার জায়গা থেকে করা যায় না। সাকলায়েনের ওই ঘটনা তদন্তে ইতোমধ্যে তদন্ত কমটি গঠিত হয়েছে। কিন্তু এখনো তদন্তের ফল জানা যায়নি।

 

সময়ের ধারা সংবাদটি শেয়ার করুন এবং আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing by Raytahost.com