রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ১১:৩১ অপরাহ্ন

সরকারী প্রকল্পের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ দাউদপুর ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর মাস্টারের বিরুদ্ধে

সরকারী প্রকল্পের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ দাউদপুর ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর মাস্টারের বিরুদ্ধে

বিশেষ প্রতিবেদক : নারায়ণগঞ্জ জেলার রুপগঞ্জ উপজেলার দাউদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নূরুল ইসলাম জাহাঙ্গীর মাস্টার দলীয় ক্ষমতার অপব্যবহার করে মানুষের জন্য সরকারীভাবে বরাদ্ধকৃত ত্রাণ ছাড়াও বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধী ভাতার নামে প্রাপ্ত সরকারি অর্থ কাউকে না দিয়ে পুরোটাই আত্মসাৎ করেছেন বলে জানা গেছে। এছাড়াও দাউদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নূরুল ইসলাম জাহাঙ্গীর মাস্টার বিভিন্ন প্রকল্প থেকে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছেন। সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে করোনাকালীন সময়ে যেসব সহায়তা দেয়া হয়েছে তার অধিকাংশই গরিব-দুঃখীর মাঝে বিতরণ না করে নিজেই আত্মসাৎ করেছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেই এ প্রতিবেদককে আরও জানিয়েছেন, দাউদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নূরুল ইসলাম জাহাঙ্গীর মাস্টার এলাকার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে বিভিন্ন অজুহাতে প্রতিষ্ঠানের তহবিল থেকে বিপুল পরিমান অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন। ইউনিয়নের বিদ্যুৎবীহিন এলাকায় বিনামূল্যে বৈদ্যুতিক মিটার দেয়ার কথা থাকলেও জনপ্রতি বা মিটারপ্রতি ৬০০০ টাকা করে নিয়েছেন। এভাবে প্রায় ৩ হাজার গ্রাহকের কাছ থেকে তিনি এসব টাকা নিয়েছেন। ইতিমধ্যে এসব অভিযোগ নিয়ে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হলেও তিনি এখনো বহাল তবিয়তে রয়েছেন। এলাকার ভোক্তভোগীদের ভাষ্যমতে, নূরুল ইসলাম জাহাঙ্গীর মাস্টার লাগামহীন দুর্নীতি করে অবৈধ সম্পদের পাহাড় গড়েছেন। তিনি নিজ ইউনিয়ন ছাড়াও রাজধানীর ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে নামে বেনামে গড়েছেন বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এছাড়াও নানা ধরনের প্রতারণা, নদী দখল করে সেখান থেকে বালু উত্তোলন,সরকারী বিভিন্ন প্রকল্পে দুর্নীতির মাধ্যমে অর্থ আত্মসাৎ, সরকারি এবং বেসরকারি মালিকানার জমি দখলসহ নানা অপকর্মের সাথে জড়িয়ে পড়েছেন তিনি। সূত্রে জানা গেছে, বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা দেশের অসহায়, গরিব ও আশ্রয়হীনদের কথা চিন্তা করে বিনামূল্যে বিধবা, বয়স্ক-প্রতিবন্ধী ভাতাসহ নানা সেবা দিচ্ছেন এবং এতে করে দেশের অসহায় মানুষ বিভিন্নভাবে উপকৃত হচ্ছেন। আশ্রয়হীনদের জন্য ঘরের ব্যবস্থা করছেন। কিন্তু বাংলাদেশের বিভিন্ন ইউনিয়নে অসহায় মানুষ সরকারের এসব সুফল ভোগ করলেও দাউদপুর ইউনিয়নে এসব সেবা টাকা ছাড়া মিলছে না। সরকারের জনবান্ধব এসব সেবা পেতে রুপগঞ্জের দাউদপুর ইউপি চেয়ারম্যার নূরুল ইসলাম জাহাঙ্গীর মাস্টারকে দিতে হচ্ছে মোটা অংকের টাকা। যার ফলে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে সেবা গ্রহিতাদের কাছে। সেবা গ্রহিতারা তা মুখ বুঝে সহ্য করে যাচ্ছেন। অভিযোগ সূত্রে আরও জানা যায়, নূরুল ইসলাম জাহাঙ্গীর মাস্টার দাউদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর তার নিজস্ব একটি বাহিনী গড়ে তুলেছেন। সেই বাহিনীর কাজ হলো সরকারের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধার কথা বলে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে চেয়ারম্যানকে মোটা অংকের টাকার জোগান দেওয়া। জানা গেছে, চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর মাস্টার প্রতিটি ভিজিডির কার্ড বাবদ তার নিজস্ব দালালদের মাধ্যমে উপকার ভোগীদের কাছ থেকে নিয়েছেন পাঁচ হাজার টাকা। এছাড়াও এলজিএসপি প্রকল্পের বরাদ্ধ থেকে গভীর নলকূপের জন্য প্রতিটিতে সাধারণ মানুষকে গুনতে হয়েছে ৩০ থেকে ৩৫ হাজার টাকা। এছাড়াও অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসৃজন প্রকল্পেও ব্যাপক অনিয়ম করা হচ্ছে দাউদপুর ইউনিয়নে। এসব অনিয়ম ও দূর্নীতি নিয়ে প্রতিবাদ করায় ইউপি সদস্যদের উপর নির্যাতন করেন জাহাঙ্গীর মাস্টার ও তার ক্যাডার বাহিনী। মোটকথা দলীয় ক্ষমতার অপব্যবহার করে দাউদপুর ইউনিয়নে চলছে দূর্নীতির মহোৎসব।

সময়ের ধারা সংবাদটি শেয়ার করুন এবং আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing by Raytahost.com