সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৯:৫৮ অপরাহ্ন

প্রতিদিন কাটুক কোরআনের পরশে

প্রতিদিন কাটুক কোরআনের পরশে

দুয়ার খুলেছে রহমতের। আজ রমজানের পঞ্চম দিন। রমজানের অবারিত রহমতে ভরে যাক আমাদের জীবন। যে কোরআনের প্রেমময়তায় আজ রমজান রহমতে ভরপুর, কোরআনের মুগ্ধতায় লাইলাতুল কদর হাজার মাসের শ্রেষ্ঠ রাত। কোরআন এসেছিল বলে মক্কা-মদিনা পৃথিবীর মর্যাদাবান শহর! কোরআনের নবী হজরত মুহাম্মদ (স) নবীদের সরদার। কোরআনের সেই প্রেম, মুগ্ধতা ও মর্যাদা আমাদের কতো আলোকিত করেছে।

মাস, রাত আর মক্কা-মদিনার মর্যাদা বাড়াতে কোরআন আসেনি পৃথিবীতে। কোরআন এসেছে মানুষের জীবন রাঙাতে। শুধু রাত শ্রেষ্ঠ হবে না; কোরআনের মানুষরাও হবে আশরাফুল মাখলুকাত। পৃথিবীর শ্রেষ্ঠতম মানুষ। কোরআন সে তো আল্লাহ প্রেমের চিঠি। পাঠে পাঠে সজীব হয় দেহমন, জোগায় আত্মিক শক্তিও। প্রেমের চিঠি প্রসঙ্গে আল্লাহ তায়ালা বলেন, যারা ইমানদার, তারা যখন আল্লাহর নাম নেয়, নরম হয় তাদের অন্তর। আর যখন তাদের সামনে কোরআন পাঠ করা হয়, তখন তাদের ইমান সজীব হয়ে ওঠে। তারা মওলার প্রেমে আত্মনিবেদিত হয়। (সুরা আনফাল : ২)

পবিত্র রমজানে পৃথিবীর ২৫ লাখ মসজিদে কোরআনুল কারিমের তেলাওয়াত হয়। এদেশের প্রায় ৫ লাখ মসজিদে তারাবির নামাজেও ভাব-আবেগ ও মুগ্ধতায় পাঠ হয় পবিত্র কোরআন। হজরত রাসুল (স) বলেন, কোরআন তেলাওয়াতকারী প্রতিটি বর্ণে দশটি সওয়াব পায়। আমি বলছি না, ‘আলিফ লাম মিম’-এর মধ্যে একটি অক্ষর। বরং আলিফ আলাদা, লাম আলাদা, মিম আলাদ বর্ণ; প্রতিটির জন্য ভিন্ন সওয়াব। (সুনানে তিরমিজি, হাদিস নং-৩০৭৫)

সওয়াবের নেশায় রাতজাগা চোখ-কান শুনবে তেলাওয়াত। বরাবরের মতো হাফেজ সাহেবরা কোরআন পাঠ করবেন, আমরা শুনব। মনভরে উপভোগ করব কোরআনের সুর, নেকি লাভ করব; কিন্তু আমরা যদি কোরআনের চর্চায় আত্ম নিয়োগ করি। বিশুদ্ধ পাঠের সঙ্গে সঙ্গে কোরআনের ভাব-ভাষা অনুধাবন করি; দীর্ঘ জীবনে আমিও হয়ে উঠতে পারি কোরআনের একজন ছাত্র। কোরআনের অলিগলি ভ্রমণকারী শিক্ষার্থী। আমাদের যাপিত জীবনে কোরআন হয়ে উঠবে আরাধ্য।

কোরআনের উৎসবমুখর মাস রমজান। মানুষ হেদায়াতের প্রত্যাশায় মুখিয়ে থাকে। রমজানে মসজিদ ভরে যায় মুসল্লিতে। ফরজ নামাজ তো বটেই, তারাবি হয়ে ওঠে কোরআনের উৎসব। ইফতার উপলক্ষেও কানায় কানায় ভরে যায় মসজিদ। রোজার জুমায় মানুষের ঢল। কিয়ামুল লাইল বা শেষ রাতের তাহাজ্জুদেও মসজিদ প্রাণবন্ত থাকে। মসজিদমুখী মানুষেরা কোরআনের আলোয় জীবন রাঙাতে চায়। হেদায়াতের নেশায় ব্যাকুল মানুষেরা শুনতে চায় কোরআনের মর্মকথা। কোরআনের ইতিহাস ও গল্পে ফিরে যেতে চায় আগের নবী-রাসুলদের জীবনে। জান্নাতের হৃদয়কাড়া বর্ণনা ও জান্নামের ভয়াবহতা কোরআনের ভাষায় স্বাদ নিতে চায় মানুষেরা। কোরআনের পরিবার ও সমাজনীতি শিখতে চায় মুসল্লিরা। ইসলামের জীবন সৌন্দর্য কোরআনে কীভাবে আছে? আধুনিক জ্ঞান-বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উৎকর্ষ সাধনায় কোরআনের মনোভাব কী? এমন সব প্রশ্নের জবাব জানতে আগ্রহী মানুষেরা। আল্লাহর প্রেমে মজে থাকার এই প্রেমপত্র পাঠ করে বুঝতে চায় অভাগারা; কিন্তু কই? কে শোনাবে তাদের কোরআনের গল্প? কে দিবে কোটি পিপাসিত হৃদয়ে কোরআনের সবক? দেশের মসজিদে মসজিদে ইমাম-খতিব, বিজ্ঞ আলেম, মুফতি, মুফাসস্সিরগণ যদি মসজিদমুখী মানুষদের এই প্রত্যাশা পূরণে এগিয়ে আসতেন। সুযোগকে কাজে লাগিয়ে কোটি কোটি মানুষকে কোরআনের ছাত্রে পরিণত করতেন। প্রতিদিন তারাবির আগে-পরে বা অন্য কোনো সময় ধারাবাহিক বলতেন আজকের পঠিত আয়াতের তরজমা-তাফসির বা কোরআনের বিশেষ আলোচনা! প্রতিদিন যদি বসত কোরআনের উৎসব! মানুষ কোরআন চর্চায় অভ্যস্ত হয়ে উঠত। যাপিত জীবনে আসত কোরআনিক ছোঁয়া। জীবনে এমন কয়েকটি রমজান পেলে কোরআনময় হয়ে উঠত প্রতিটি মানুষের জীবন। রমজান শেষে মুসল্লিশূন্য হতো না মসজিদগুলো। কোরআনের পরশে বছরব্যাপী প্রাণবন্ত থাকত মানুষের মন-দিল; কিন্তু কোরআনের কার্যকর প্রেম, ভালোবাসা, অর্থ ও মর্ম বোঝার গতি ক্রমেই কমে আসছে আমাদের জীবনে। শিল্পনন্দিত মুদ্রিত কোরআন বুকে নয়, আমরা সাজিয়ে রাখি শোকেসে। মাঝে মধ্যে চুমো খেয়ে সম্মান জানাই। এমনো হয়, শ্রদ্ধাভরে ঘরের কোরআনটি পাঠিয়ে দিই মসজিদে। বাসাবাড়িতে এত সামগ্রীর ভিড়ে কোরআন রাখব কোথায়! ওই আদুরে ছেলের মতো, যে মাকে উদ্দেশ করে বলে, বাসায় তোমার কষ্ট হয়, বৃদ্ধাশ্রম ভালো লাগবে। বৃদ্ধ বাবা-মাকে বৃদ্ধাশ্রমের জীবন্ত কবরে পাঠিয়ে ছেলে যে তৃপ্তি পায়, ঘরের কোরআন মসজিদে পাঠিয়েও আমাদের সে রকম উপলব্ধি। সত্যিই কোরআনের মর্মকথা আমরা বুঝি না। খুব সহজে রঙিন মোড়কে আমরা কোরআন পেয়েছি বলে।

একটি আয়াতের জন্য সাহাবিরা দিনের পর দিন পথে অপেক্ষার কষ্ট আমরা কি অনুভব করতে পারব? আল্লাহ বলেন, এক কল্যাণময় কিতাব আমি অবতীর্ণ করেছি, যেন মানুষ কোরআন অনুভব করে। বোধসম্পন্ন ব্যক্তিরা তা উপদেশ হিসেবে গ্রহণ করে। (সূরা সদ : ২৯)

প্রভু! কোরআনের মর্মোপলব্ধি করার শক্তি দাও আমাদের।

পুনশ্চ : বাংলাদেশি মুদ্রার নাম টাকা। সৌদি আরবের রিয়াল, আমেরিকায় ডলার, ইউরোপে ইউরো। পরকালের একটি মুদ্রা, নাম-সওয়াব। কোরাআনের প্রতিটি বর্ণপাঠে দশটি সওয়াব। রোজায় সত্তরটি। টাকা-রিয়াল-ডলার-ইউরো উপার্জনের চেয়ে চিরস্থায়ী জগত পরকালের সওয়াব উপার্জনের প্রতিযোগিতা করা উচিত। সওয়াব অর্জনে রোজার চেয়ে উত্তম সময় আর নেই।

 

সময়ের ধারা সংবাদটি শেয়ার করুন এবং আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing by Raytahost.com