বৃহস্পতিবার, ২৫ Jul ২০২৪, ১২:৩৫ পূর্বাহ্ন

কুমিল্লার বরুড়ায় ক্রয় করা জমিতে ঘর নির্মাণে বিক্রেতার বাধা, নির্মাণাধীন ঘর ভাংচুর

কুমিল্লার বরুড়ায় ক্রয় করা জমিতে ঘর নির্মাণে বিক্রেতার বাধা, নির্মাণাধীন ঘর ভাংচুর

গাজী রুবেল, কুমিল্লা : কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার চন্ডিপুর এলাকায় নিজ জায়গায় বাড়ি নির্মাণে প্রতিবেশীর বাধা, বাড়ি-ঘর ভাংচুর করার অভিযোগ উঠেছে একই এলাকার মোঃ আবদুর রহিমের ছেলে মোঃ হুমায়ুন কবির ও তার কলেজ পড়ুয়া ছেলে মোঃ সোহাগ মিয়ার বিরুদ্ধে।  গোপালপুরে এক অসহায় পরিবারের জায়গা জমি দখল ও নিজের জায়গার উপর বাড়ি নির্মাণ কাজে বাধা ও মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে তার প্রতিবেশীদের বিরুদ্ধে। গত প্রায় ৪ বছর আগে হুমায়ুন কবিরের কাছ থেকে ক্রয় করেন জনির মা রেহেনা বেগম।
ভুক্তভোগী জনি মিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হয় আমি মোঃ হুমায়ুন কবিরের কাছ থেকে ২ শতাংশ জায়গা ক্রয় করি। আমার ক্রয় করা জায়গায় বাড়ি নির্মাণ করতে গেলে হুমায়ুন কবির ও তার ছেলে সোহাগ মিয়া এবং তার স্ত্রী বাধা প্রদানসহ কাজ করার মিস্ত্রিদেরকে মারধর শুরু করেন।  জনি আরও জানান, এই জমির দলিল ও সকল কাগজপত্র সব কিছু আছে। ওই একই জমির পাশ দিয়ে পায়ে হেঁটে যাবার রাস্তা থাকার পরেও, আরো প্রশস্ত রাস্তা দাবি করে হুমায়ুন কবিরের পরিবার। প্রতিনিয়ত হুমকি ধামকি দিয়ে যাচ্ছে তারা। এমনকি বাড়ি নির্মাণে বাধা দিচ্ছেন তারা। এখন তারা রাস্তা নেবার নাম করে আমাদের উপর নানান রকম জুলুম-নিপীড়ন চালাচ্ছেন।
এ বিষয়ে জমির সাবেক মালিক অথাৎ অভিযুক্ত সোহাগ ও তার মার সাথে কথা বলতে গেলে তারা বলেন, আমরা জনির কাছে জায়গা বিক্রি করেছি সিওর। তবে আমরা চাই আমাদের চলাচল করার জন্য ৮ ফুট রাস্তা দিতে হবে। বাড়ি ঘর ভাংচুরের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা আমার স্বামী ও ছেলে অন্যায় করে যে কাজটি সঠিক করে নাই।  এ বিষয়ে আরো দুজন প্রতিবেশীর সাথে কথা হলে তারা বলেন, হুমায়ুন কবির জনির পরিবারের কাছে জায়গা বিক্রি করেছে সিওর। জনি হুমায়ুন কবিরের পরিবার চলাচল করার জন্য প্রায় ৪ ফুট জায়গা ছেড়ে ঘর নির্মাণ করছেন। কিন্তু হুমায়ুন কবিরের পরিবার ঘর নির্মাণে বাধা প্রদান করেন এবং কাজের লোকজনদের মারধর করেছেন বলেও আমি শুনতে পায়।  তবে ওই জায়গাটি  ওদের। আর আমি এ বিষয়ে কোন কথা বলতে চাচ্ছি না। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন এলাকাবাসী জানান হুমায়ুন কবির অন্যত্র কিছু জমি বিক্রি করার উদ্দেশ্যে রাস্তা প্রশস্ত করতে চাচ্ছেন। ভুক্তভোগী জনি বলেন আমি বিষয় টা সুষ্ঠু সমাধান আশা করি তবে আমি ও আমার পরিবার আতংকিত।  বরুড়া থানার সাব ইন্সপেক্টর (এস,আই) মোহাম্মদ সাহেদ বলেন বিষয় টা গুরুত্ব সহকারে আমলে নিয়ে সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে।

সময়ের ধারা সংবাদটি শেয়ার করুন এবং আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ

© All rights reserved © somoyerdhara.com
Desing by Raytahost.com